ওয়েস্ট ইন্ডিজকে নাগালে রাখার পরও বাংলাদেশের হার

বাংলাদেশের ইনিংসের মাঝ পথে সূর্যটা শারজাহ স্টেডিয়ামের পশ্চিম পাশে হেলে পড়ছে। সেই সময়ও ব্যাট হাতে জ্বলজ্বল করছেন লিটন দাস। ফ্লাড লাইটের আলো যতটা গাঢ় হচ্ছে লিটনের ব্যাট ততটাই হয়ে চলেছিল সাবলীল।
যদিও তাকে যোগ্য সঙ্গ দিতে পারেননি অভিজ্ঞ মুশফিকুর রহিম। অহেতুক স্কুপ শট খেলতে গিয়ে তিনি উইকেট ছুড়ে দিয়েছেন রবি রামপালের বলে বোল্ড হয়ে মাত্র ৮ রানে। এরপর উইকেটে এসে লিটনের কাঁধের বোঝা অনেকটা কমিয়েছেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।
যদিও ১৯তম ওভারের শেষ বলে ডোয়াইন ব্রাভোকে সোজা ব্যাটে খেলতে গিয়ে ৪৪ রান করে জেসন হোল্ডারের হাতে ক্যাচ দিয়েছেন লিটন। শেষ ওভারে জয়ের জন্য বাংলাদেশের প্রয়োজন ছিল ১৩ রান। ৫ বল শেষে সেই সমীকরণ দাঁড়ায় ১ বলে ৪ রান। যদিও শেষ বলটি ব্যাটেই লাগাতে পারেননি মাহমুদউল্লাহ। ফলে ৩ রানের হার নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয় বাংলাদেশকে।

বাংলাদেশ দলের ওপেনিং:

ওয়েস্ট ইন্ডিজকে নাগালে রাখার পরও বাংলাদেশের হার image collected and edited for reuse
ওয়েস্ট ইন্ডিজকে নাগালে রাখার পরও বাংলাদেশের হার

ওপেনিংয়ে বাংলাদেশ দলের ভঙ্গুর দশার নিয়মিত চিত্র। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দলের সব কম্বিনেশন ভেঙে সাকিব আল হাসানকে ওপেনিংয়ে খেলানো হয়। শুরুটা দারুণ হলেও এই জুটি লম্বা হতে দেননি আন্দ্রে রাসেল। ব্যাক্তিগত ৯ রানে তিনি সাকিবকে জেসন হোল্ডারের ক্যাচ বানিয়ে আউট করেন। বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান ৯ রানের জন্য ১২ বল খেলেন।
সাকিবের বিদায়ের পর নাইমও বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। তিনি জেসন হোল্ডারের গুড লেন্থের বলে বোল্ড হন ১৯ বলে ১৭ রান করে। চার নম্বরে নামা সৌম্য সরকার দারুণ সঙ্গ দিয়েছেন লিটন দাসকে। এই দুজনে মিলে তৃতীয় উইকেটে যোগ করেন ৩১ রান। ভালো শুরুর পরও সৌম্য ১৩ বলে ১৭ রান করে আকিল হোসাইনের বলে শর্ট থার্ড ম্যান অঞ্চলে ক্যাচ দেন ক্রিস গেইলের হাতে। এরপর মুশফিক দ্রুত ফিরে গেলে চাপে পড়ে বাংলাদেশ। লিটন-মাহমুদউল্লাহ জয়ের কিছুটা আশা জাগালেও তীরে এসে তরী ডোবায় বাংলাদেশ।
এর আগে এই ম্যাচে প্রতিপক্ষের আমন্ত্রনে ব্যাটিং করতে নেমে সাবধানী শুরু করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। প্রথম দুই ওভারে বাংলাদেশের বোলারদের দেখে শুনে খেললেও তৃতীয় ওভারে এসে উইকেট হারায় ক্যারিবীয়রা। এভিন লুইস মুস্তাফিজুর রহমানের বলে তুলে মারতে গিয়ে মুশফিকুর রহমানের হাতে ক্যাচ তুলে দেন তিনি। এর এক ওভার পর শেখ মেহেদীর বলে বোল্ড হন গেইল। ৪ রান করেন এই ওপেনার। পাওয়ার প্লে’তে ২ উইকেট হারানো দলটির স্কোরবোর্ডে যোগ হয় ২৮ রান। সপ্তম ওভারে রস্টন চেজের ক্যাচ ছাড়লেও মেহেদীকে উড়িয়ে মারতে গিয়ে লং অফে সৌম্য সরকারের হাতে ধরা পড়েন শিমরন হেটমায়ার। ৯ রান করে আউট হন তিনি।

আরো জানুন:

গুরুকুল লাইভ : টি-২০ বিশ্বকাপ দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর শুরু হচ্ছে আজ থেকে!

ক্যারিবিয়ানদের শেষের ৩৬ বলের বিধ্বংসী ব্যাটিং:

ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্যাটিং image collected and edited for reuse
ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্যাটিং

৩ ব্যাটসম্যানের বিদায়ের পর ক্রিজে আসেন কাইরন পোলার্ড। চেজের সঙ্গে জুটি গড়ে দলকে নিয়ে যান ৫০ এর ওপর।কিন্তু দলীয়ভাবে ৬৩ রান করার পর নিজ থেকেও অবসরে যান ক্যারিবিয়ান এর অধিনায়ক।তারপরেও বিপদ তাদের কাটেনি।এর পরের বলেই সোজা তাসকিনকে ড্রাইভ চেজ করেন।কিন্তু বোলারের পায়ে বল লেগে স্টাম্পে আঘান হানে।
কোন বল না খেলেই রান আউট হন আন্দ্রে রাসেল। এরপরের ওভারে চেজকে ফেরানোর সুযোগ পেয়েছিলেন সাকিব। কিন্তু মেহেদি ক্যাচ লুফে নিতে পারেননি। রাসেল ফেরার পর চেজের সঙ্গে জুটি বাঁধেন নিকোলাস পুরান। এই দুজনের ব্যাটে ১৭ ওভারে দলীয় ১০০ তে পৌছায় ক্যারিবিয়ানরা। এর আগের ওভারে সাকিবকে ২ ছক্কা হাঁকান পুরান। ১৮তম ওভারে মেহেদির বিপক্ষে আরও বিধ্বংসী হয়ে ওঠেন তিনি।

প্রতিপক্ষের আমন্ত্রনে ব্যাটিং করতে নেমে সাবধানী শুরু করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। প্রথম দুই ওভারে বাংলাদেশের বোলারদের দেখে শুনে খেললেও তৃতীয় ওভারে এসে উইকেট হারায় ক্যারিবীয়রা।

মুশফিকের সুন্দর একটি ক্যাচ image collected and edited for reuse
মুশফিকের সুন্দর একটি ক্যাচ

মুস্তাফিজুর রহমানের বলে তুলে মারতে গিয়ে মুশফিকুর রহিমের হাতে ক্যাচ তুলে দেন এভিন লুইস।
ওভারের প্রথম ৩ বলে ২ ছক্কা হাঁকান বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান। ওভার শেষে পোলার্ডবাহিনীর সংগ্রহ দাঁড়ায় ১১৯ রান। পরের ওভারের প্রথম বলে শরিফুলকে উড়িয়ে মারতে গিয়ে আউট হন পুরান। ২২ বলে ৪০ রান আসে তার ব্যাট থেকে।পরের বলেই চেজের স্টাম্প ভেঙে দেন এই তরুণ। ২ বলে ২ উইকেট তুলে নিয়ে হ্যাটট্রিকের সুযোগ তৈরি করেন বাঁহাতি এই পেসার। তবে পরের বলে হোল্ডারকে আর আউট করতে পারেননি শরিফুল। যদিও পঞ্চম বলে আরও একটি উইকেট নেয়ার সুযোগ ছিল তার। তবে আফিফ হোসেন হোল্ডারের ক্যাচ তালুবন্দি করতে পারেননি।
শেষ ওভারের প্রথম বলে ডোয়াইন ব্রাভোকে ফিরিয়ে দেন মুস্তাফিজ। তবে এরপরের ২ বলে জোড়া ছক্কা হাঁকান হোল্ডার। তাতে তাদের রান পৌঁছে যায় ১৩৫ এ। পাঁচ নাম্বার পোলার্ড মিস করে থাকলেও শেষ বলে ছক্কা হাঁকান তিনি। ২০তম অর্থাৎ শেষ ওভারে আসে ১৯ রান।৭২ রান আসে শেষ ৩৬ বলে।

 

বাংলাদেশ ক্রিকেট টিম সম্পর্কে জানুন:

উইকিপিডিয়া : বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল

আমাদের সাথে যোগাযোগ